HomeOthers

  না বলা ভালোবাসা
2021-10-20
Apk

Additional Information
তিথী ও সাদমান হলো বেস্টফ্রেন্ড, শুধু ফ্রেন্ড বললে ভুল হবে মানে এরা একে অপরকে অনেক ভালোবাসে। কিন্তু কেউ কখনো কাউকে বলতে পারেনা। সাদমান আর আমি ক্লাসমেট ও রুম মেট ছিলাম, এবং আমরা বেশ ঘনিষ্ঠই ছিলাম যার ফলে সাদমান আমাকে সবকিছুই বলতো। ওদের ফ্রেন্ডশিপ এমন ছিলো যা আমার পক্ষে ব্যাখ্যা করা সম্ভব না। আমি আর সাদমান প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ছিলাম আর তিথী ছিলো মেডিকেলে ছাত্রী, তাই তারা ইচ্ছে থাকা শর্তেও দুপুরের অথবা বিকেলের আগে দেখা করতে পারতোনা। তিথী দেখতে খুবই সুন্দর, শান্ত-শিষ্ঠ সভাবের মিষ্টি একটা মেয়ে। আর সাদমান দেখতে সুদর্শন হলেও ও একটু বদমেজাজি ছিলো, তাই তাদের মাঝে একটু আকটু কথা কাটাকাটি হতো। ঠিক এমন ভাবেই দিনকাল চলতে থাকে দুইজনের দিনকাল সকালে ক্লাস আর বিকেলে একসাথে ঘুরে বেড়ানো, একজন আরেকজনের সাথে সময় কাটানো, মাঝে মাঝে একজন আরেকজনের সাথে হালকা ঝগরা করে মুখফুলিয়ে বসে থাকা, এভাবেই চলছে তাদের দিনকাল। একদিন আমি বসে বসে ল্যাপটবে ভার্সিটির অ্যাসাইনমেন্টেরকাজ করছি। এমন সময় সাদমান এসে আমার কাছে এসে বলে____ ———->মাহফুজ,,!!!(সাদমান) ——–>জ্বী,,!! কিছু বলবা?(আমি) ———–>হ্যাঁ,,,!!(সাদমান) ——–>বলো কী বলবা।(আমি) ———–>আসলে আমি তিথীকে ভালোবেসে ফেলেছি(সাদমান) ——–>ভালো যখন বেসেছো তাহলে বলে দাও তুমি ওকে ভালো বাসো(আমি) ———–>হুমমম,,, সেটাই ভাবছি(সাদমান) ——–>তা,,, কবে বলবে তুমি তোমার মনের কথাটা তিথীকে?(আমি) ————->কালকেই বলবো!!(সাদমান) ———->আচ্ছা,,!!(আমি) এরপর সাদমানের ফোনে কল আসে মনেহয় তিথী কল করেছে। ও কল রিসিভ করে ওর রুমে চলে গেলো। কাল সন্ধার পর তিথীকে একটা রেস্টুরেন্টে দেখা করতে বললো সাদমান। পরেরদিন দুপুরে খেয়েদেয়ে একটু ঘুমিয়েছিলাম,,, হাঠাৎ করে ভুমিম্প অনুভুতি হওয়ায় ঘুম থেলে লাফ দিয়ে উঠি, উঠে দেখি এটা ভুমিকম্প নয় সাদমান আমাকে জোরে জোরে ধাক্কা দিয়ে ডাকতেছে,, সে আজকে তিথীকে প্রেমের প্রস্তাব দিবে আমাকেও নাকি ওর সাথে থাকতে হবে। একপ্রকার জোর করেই আমাকে সাথে নিয়ে গেলো সাদমান,,, যাওয়ার সময় এক গুচ্ছ গোলাপ নিলো,,, কালো গোলাপ নিলো তিথীর নাকি কালো গোলাপ খুব পছন্দের তাই সাদমান কালো গোলাপটাই নিলো তারপর আমারা রওয়ানা দিলাম তিথীর কাছে যাওয়ার উদ্দেশ্যে,,, সাদমান বাইক চালাচ্ছে আমি পিছে গোলাপ গুচ্ছ হাতে নিয়ে বসে আছি,, সাদমান বাইক বরাবরই বেপরোয়া ভাবে চালায়,,, আজকেও তার ব্যাতিক্রম হলোনা সে বেপরোয়া স্পিডে বাইক চালাচ্ছে,, আমি বারবার নিষেধ করা শর্তেও সে আমার কথার কোনো তোয়াক্কা না করে সে তার মতো বাইক চালাই তে ব্যাস্ত,,,, এমন করতে করতে কোথা থেকে যেনো একটা পিকাপ ভ্যান এসে সামনে থেকে আমাদের ধাক্কা দেয় আমি ছুটে গিয়ে পাশে পরি,, তারপর আমার আর কিছুই মনে নেই,,, জ্ঞান হারিয়ে ফেলি যখন জ্ঞান ফিরলো তখন আমি আমাকে হাসপাতালের বেডে আবিস্কার করলাম,, আমার বাবা আমার পাশে বসে আছে,,, আমার ছোট ভাই কেবিনের সোফায় শুয়ে ঘুমাচ্ছে,,, বাবা আমার জ্ঞান আসছে দেখে আমার কাছে এসে বললো এখন কেমন লাগছে তোমার বাবা,,, —>জ্বী ভালো(আমি) —–>কী করে হলো এসব বাবা,,(আব্বু) —>আসলে দুর্ঘটনা কখন কীভাবে হয় তা তো আমারা বলতে পারিনা,,,, হঠাৎ কী থেকে কী হয়ে গেলো বুঝতেই পারিনাই(আমি) —–>ওহ্(আব্বু) —>আব্বু,,,,!!!!(আমি) —–>হুমমম,,, বলো(আব্বু) —>সাদমান কই??(আমি) —–>………….!!!!!(আব্বু) —>কী হলো আব্বু??? সাদমান ঠিক আছে তো ও এখন কোথায় আছে??(আমি) —–>সাদমান আর বেঁচে নেই বাবা,,,, ও Accident এর স্থানেই মারা গেছে,,(আব্বু) আব্বুর কথা শুনে আমি একদম চুপ হয়ে যাই, আমার যেনো কথা বলার শক্তি হারিয়ে গেছে মূহুর্তের ভেতর চোখের সামনে সাদমানের হাসি মাখা মুখটা ভেসে উঠলো,,,, এমন তরতাজা যুবক এইভাবে আমাদের ছেরে চলে গেলো না ফেরার দেশে ভাবতেই বুকের ভেতর কেমন জানি করে উঠলো,,,, মনের অযান্তেই চোখ দিয়ে দু’ফোটা পানি বের হয়ে এলো,,,,মনে মনে বলতে লাগলাম, এমন ভাবে আমাদের ছেরে চলে গেলা বন্ধু কাজটা ভালো করলানা,,,, ভালো থেকো বন্ধু ওপারে এই দোয়াই রইলো তোমার জন্য,,,, হসপিটাল থেকে রিলিজ পেলাম ১৫দিন পর,,,বাসায় গেলাম। ২দিন পর শুয়ে আছি এমন সময় তিথী আমার বাসায় আসে,, এসে আমার কাছে এসে সরাসরি জিজ্ঞেস করে,,,, ——>মাহফুজ,,,!!! আমাকে একটা কথা বলবা??(তিথী) —>হুমম,, কী বলতে হবে বলো(আমি) ——>সাদমান মারা যাওয়ার আগের দিন রাতে আমাকে কী জানি বলতে চেয়েছিলো আমিও জানতে চেয়েছিলাম কিন্ত ও বললো যে ফোনে বলবে না সরাসরি বলবে,,, কিন্তু দেখো কি থেকে কি হয়ে গেলো,,,{কেদে দিছে}(তিথী) —>হুমমম!!!!(আমি) ——>মাহফুজ,,,!!! তুমি কী জানো বা বলতে পারো যে সাদমান সেদিন ঠিক কী বলতে চেয়েছিলো আমায়??(তিথী) —>আমি সঠিক জানিনা(আমি) ——>সত্যিই তো,,,,,!!!!(তিথী) —>হুমম,,!!! সত্যি(আমি) তিথী আর কিছু না বলে এখান থেকে চলে গেলো,,,, আমি তিথীর চলে যাওয়ার দিকে তকিয়ে আছি আর মনে মনে বলছি,,, আসলেই পৃথিবীতে বেঁচে থাকাটাই আশ্চর্য জনক,, আমরা কখন কীভাবে কোথায় চলেযাবো না ফেরার দেশে তার কোনো ঠিক ঠিকানা নেই,, যাওয়ার সময় হজারো স্মৃতি, ভালোবাসা, ঘৃণা রেখে যাবো এটাই প্রকৃতির নিয়ম। তবে আমার একটা জিনিস খুবই খারাপ লাগলো বা এখনো লাগে,, যে সাদমান তিথী তার মনের কথাটা আর বলতে পারলোনা যে “তিথী আমি তোমায় ভালোবাসি” কিছু কিছু ভালোবাসা এমনই অপ্রকাশিত রয়ে যায়,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,!!!!!!!! ——————সমাপ্ত————–

You may also like

  Kiat Menang Judi Online

  ➡️ Others


  Cybersecurity Trends of your Year

  ➡️ Others


  Hello world

  ➡️ Others


  See for Me

  ➡️ Others


  CBI 5 The Brain

  ➡️ Others


Make A Comment

Read More Load More And Share Your Knowledge
© 2021 LoadX.Xyz